নতুন বাংলাদেশ

নতুন দৃষ্টিতে বাংলাদেশ

প্রথম পাতা > উপসম্পাদকীয় > সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম > জেগে উঠতেই হবে, সম্বিত ফিরে পেতেই হবে

জেগে উঠতেই হবে, সম্বিত ফিরে পেতেই হবে

24 December 2019, সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম PrintShare on Facebook

প্রারম্ভিক নিবেদন ও আহ্বান
আমার পক্ষ থেকে সম্মানিত পাঠকদের জন্য, ২০১৯ সালের শেষ কলাম। আগামী তিনটি বুধবার লিখতে পারব না। অতএব পাঠকরা পড়তে পারবেন না। সে জন্য অগ্রিম ক্ষমাপ্রার্থী। যেহেতু বিজয়ের মাস, বিজয় দিবস পার হয়ে গেলেও, বিজয়ের মাসে আমি সব সম্মানিত পাঠককে তথা দেশবাসীকে অভিনন্দন, শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। বাংলাদেশ একটি ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। একটি জাতির তথা দেশের স্বাস্থ্যের পর্যালোচনা করলে, শুধু অর্থনৈতিক অঙ্গনই যথেষ্ট নয়। রাজনীতি, অর্থনীতি, সামাজিক সংহতি, জাতীয় মনোবল, বৈশ্বিক সমাজে অবস্থান, নৈতিকতা এবং পরিচ্ছন্নতা ইত্যাদি সব কিছুই ধর্তব্যের মধ্যে নেয়া বাঞ্ছনীয়। আমি রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অবশ্যই কামনা করব, দেশবাসী মুক্তিযুদ্ধকে সবার উপরে ধারণ করবে, কিন্তু এটাই যথেষ্ট নয়। আরো অনেক সাফল্য দরকার, আরো অনেক বিজয় দরকার। তাই জাতির তরুণ সম্প্রদায়কে আহ্বান জানাব যেন তারা দেশের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন এবং মূল্যায়ন করেন। মূল্যায়ন করার পর তারা যেন সিদ্ধান্ত নেন। আমাদের বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে, সর্বজনস্বীকৃতভাবে উন্নয়ন করতে হলে ওই রকম নেতৃত্ব প্রয়োজন, যে নেতৃত্ব সব ধর্মের ধর্মীয় মূল্যবোধ, মুক্তিযুদ্ধের আদি মূল্যবোধগুলো, বৈশ্বিক ও আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট, বাংলাদেশের জন্য অর্থনৈতিক প্রয়োজন ইত্যাদি সব আঙ্গিকের মধ্যে ভারসাম্য বা ব্যালেন্স রক্ষা করতে হবে। ২০১৯ সালের সঙ্কটময় পৃথিবীতে কোনো একটি আঙ্গিক যদি গুরুত্ব বেশি পায় বা কোনো একটি আঙ্গিক যদি অবহেলিত হয়, তাহলে দেশের অগ্রযাত্রা ব্যাহত হবে।

বিজয়পরবর্তী বাংলাদেশে মুক্তিযোদ্ধারা সুযোগবঞ্চিত
ডিসেম্বর এলেই বাংলাদেশের মানুষের অনুভূতিতে, চিন্তাচেতনায় আলাদা একটা পরিবর্তন আসে। ডিসেম্বর এলেই মানুষ চিন্তা করে; জাতীয় অগ্রগতির পোস্টমর্টেম করে; স্বাধীনতার পরবর্তী বছরগুলোর কর্মকাণ্ডের মূল্যায়ন করে। আমাদের অনেক অর্জন আছে, এটার জন্য সমগ্র জাতি অভিনন্দন পাবে, আলাদা আলাদাভাবে আরো অনেকেই পাবে; দুটো অনুচ্ছেদ পরে এ প্রসঙ্গে আবারো বলছি। আমাদের অনেক ব্যর্থতাও আছে এবং ব্যর্থতার কারণও আছে। তবে ১৯৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনের একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমি সব কারণের ব্যাখ্যা দিতে না পারলেও একটি কারণ উপস্থাপন করার চেষ্টা করছি। একটি গল্প বা উদাহরণ দিয়ে এটা বোঝাচ্ছি। গ্রামবাংলার একটি ঘর। গ্রামের একজন বয়স্ক মহিলা ধাত্রীর বা দাইয়ের কাজ করেন। গরিব কৃষকের ঘরে তার নববধূ সন্তান প্রসব করবেন। ওই ঘরে কৃষকের মা নেই, শাশুড়ি নেই, বড় বোন নেই, নববধূর বড় বোন নেই এবং পাড়া-প্রতিবেশীর মধ্যেও এমন কোনো বয়স্কা মহিলা নেই যারা শিশুসন্তান লালন-পালন করেছেন। ধাত্রী বা দাই কৃষকের বাড়িতে গেলেন। যথাসম্ভব চেষ্টা করে শিশু প্রসব করালেন। শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ামাত্রই ওই কৃষক ধাত্রীকে বললেন, আপনার কাজ শেষ; আপনি এখন বাড়ি যান। ধাত্রী বলতে চাইলেন যে, আরেকটু থাকি। তাহলে তোমার উপকার হবে। কৃষক বললেন, আপনাকে আর থাকতে হবে না। আমি শিশুর জন্মদাতা, আমি দেখাশোনা করতে পারব। কৃষক দেখাশোনা করতে চেষ্টা করলেন; কিন্তু ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য, শিশুর সর্দি-কাশি লেগে যায়; শিশুর হাঁপানি রোগ লেগে যায়, শিশু দুর্বল হতে থাকে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ১৯৭২ সালে তাই হয়েছিল। তৎকালীন রাজনৈতিক নেতৃত্ব যারা মুক্তিযুদ্ধের পূর্বে এবং মুক্তিযুদ্ধকালেও রাজনৈতিক নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, তারা রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধাদের ও সব মুক্তিযোদ্ধাকে বললেন, আপনাদের কাজ শেষ। আপনাদের কাজ ছিল যুদ্ধ করা; যুদ্ধ করেছেন, অনেক ধন্যবাদ। এখন ঘরে যান; যার যার পেশায় ফিরে যান। অতএব, মুক্তিযোদ্ধা সঙ্গীতশিল্পী সঙ্গীতে ফিরে গেলেন; শব্দ-সৈনিক বেতারে ফিরে গেলেন; প্রশাসনিক কর্মকর্তারা প্রশাসনে ফিরে গেলেন; ছাত্ররা লেখাপড়ায় ফিরে গেলেন; শিক্ষকরা শিক্ষকতায় ফিরে গেলেন; পুলিশরা পুলিশে ফিরে গেলেন; ইপিআর বিডিআরে ফিরে গেলেন; সামরিক ব্যক্তিরা সামরিক বাহিনীতে ফিরে গেলেন; বেকাররা বেকারত্বে ফিরে গেলেন; রাজনীতিবিদরা দেশ শাসনের দায়িত্ব নিলেন। কিন্তু প্রথাগত পদ্ধতিতে দেশ শাসন করতে গিয়ে এবং একদলীয় দায়িত্বে দেশ শাসন করতে গিয়ে, তারা মুক্তিযুদ্ধের বাইরের বিরাট একটি জনশক্তিরও সহায়তা নিলেন। যাদের সহায়তা নিলেন তাদের মধ্যে একটি বিরাট সংখ্যা ছিল, যারা নয় মাস পাকিস্তানিদের সহায়তা, সহযোগিতা করেছিল। আগ্রহী পাঠকদের কাছে আবেদন, তারা যেন, এএসএম সামছুল আরেফীন নামক একজন সম্মানিত গবেষকের লেখা ‘মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে ব্যক্তির অবস্থান’ নামক বইটি সংগ্রহ করেন এবং পর্যালোচনা করেন। এ ঘটনা বা প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে আমি বোঝাতে চাচ্ছি যে, রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধারা স্বাধীন বাংলাদেশের ভাগ্য নির্ধারণে বা গতিপথ নির্ধারণে ভূমিকা রাখার কোনো সুযোগ পাননি। এই কথাটি গুরুত্বপূর্ণ। মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ করেছিলেন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে। হানাদার বাহিনী ক্ষতি করেছে বাংলাদেশের মাটি ও মানুষের। কিন্তু পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর পরিণতি কী হবে বা কী হবে না, এ প্রসঙ্গেও মুক্তিযোদ্ধারা আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো সিদ্ধান্ত দেননি। কারণ সিদ্ধান্ত দেয়ার কোনো সুযোগ তাদের জন্য রাখা হয়নি। আজ ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে এসে আমি মনে করি, আমরা যদি ১৯৭২-এ কূটনীতিতে আগ্রাসী হতাম, মুক্তিযোদ্ধারা যদি উপযুক্ত ভূমিকা রাখার সুযোগ পেতেন, তাহলে সম্ভবত আজকের পরিস্থিতি হতো না। আরো আলোচনা পরের অনুচ্ছেদে আছে।

রাজনীতি, বিবেক ও দেশপ্রেম
একটি রাষ্ট্র পরিচালনা করার মানে এই নয় যে, শুধু সরকারের ক্যাবিনেটের অংশ হবেন অথবা পার্লামেন্টের সদস্য হবেন এবং নিয়মিত কিছু কাজ করবেন। একজন মানুষ যেমন পাঁচটি ইন্দ্রিয়ের সমন্বয়ে গড়া; এর পরও অনেকে বলে মানুষের মাঝে ষষ্ঠ ইন্দ্রিয় বিদ্যমান। তদ্রূপ একটি রাষ্ট্র পরিচালনার নীতিমালায় বিভাগ বিদ্যমান। তার মধ্যে একটি হলো নির্বাহী বিভাগ, অপরটি আইন প্রণয়ন বিভাগ আর তৃতীয় বিভাগটি হলো বিচার বিভাগ। এ ছাড়া মানবিক দিক বিবেচনায় চতুর্থ একটি বিভাগের কথা অনায়াসে বলা যায়, সেটি হলো দেশপ্রেম ও বিবেক বিভাগ। পূর্বোক্ত তিনটি বিভাগের কর্তাব্যক্তিদের মধ্যে যদি দেশপ্রেম ও বিবেক না থাকে তাহলে তারা তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথ ও সুষ্ঠুভাবে পালন করতে ব্যর্থ হন। দু-একটি উদাহরণ দিলে বিষয়টি বোঝা যাবে।

উদাহরণ-১ বিসিএস প্রশিক্ষণ
যদি একজন ব্যক্তিকে বিসিএস পরীক্ষায় প্রিলিমিনারি বা লিখিত এবং চূড়ান্ত ভাইভা কিংবা মৌখিকভাবে পাস করার পর আপাতত নির্বাচন করা হয় বা মনোনয়ন দেয়া হয়, স্বাস্থ্যগত পরীক্ষায় পাস করা সাপেক্ষে। অতঃপর তিনি মনোনয়ন পান চূড়ান্তভাবে। তিনি সরকারের কাছ থেকে একটি পত্র পান সেই শর্ত মোতাবেক যেখানে রিপোর্ট করার কথা সেখানে রিপোর্ট করেন বা নির্দিষ্ট স্থানে উপস্থিত থাকেন। তারপর তিনি যে ক্যাডারের অফিসার সে ক্যাডারের মৌলিক কিছু প্রশিক্ষণ আছে এবং তিনি সেই প্রশিক্ষণটি গ্রহণ করার জন্য প্রস্তুতি নেন। বিসিএস অ্যাডমিন ক্যাডারের প্রশিক্ষণ এক রকম, বিসিএস কর ক্যাডারের প্রশিক্ষণ অন্যরকম। আবার বিসিএস সিভিল বা আনসার বাহিনীতে যারা যান তাদের প্রশিক্ষণ আরো ভিন্নতর। এভাবে প্রতিটি বিভাগের প্রশিক্ষণ বিভিন্ন ক্যাটাগরি অনুসারে বিভক্ত। আর এই প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্দেশ্য হলো ব্যক্তি তার জীবনের জন্মলগ্ন থেকে ২৫-২৬ বছর বয়স পর্যন্ত যা কিছু অর্জন করেছেন, সেই অভিজ্ঞতাকে চাকরির চাহিদা দিয়ে প্রলেপ দেয়া। চাকরিটি করতে গেলে কী কাজ জানতে হবে, কোন নিয়মে কাজ করতে হবে তার পূর্বধারণা দেয়াই হলো প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্য।

উদাহরণ-২ সেনা অফিসারদের প্রশিক্ষণ
সেনাবাহিনীর অফিসারদের প্রশিক্ষণের দিক বিবেচনা করলে দেখা যায়, সাড়ে ১৭ থেকে সাড়ে ১৯ বছর বয়সসীমার মধ্যে আবেদন করতে হয় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অফিসার পদে নিয়োগ পাওয়ার জন্য। প্রথমে একটি ভাইভা বা মৌখিক পরীক্ষা হয়, তারপর একটি লিখিত পরীক্ষা হয়, এরপর ইন্টার সার্ভিসেস সিলেকশন বোর্ডের মাধ্যমে এক দিন অথবা সাড়ে তিন দিনের একটি পরীক্ষা নেয়া হয়। তারপর চূড়ান্ত মেডিক্যাল হয় এবং এরপর তিনি নিয়োগ পান। এরপর প্রশিক্ষণের জন্য গেলে তাকে চট্টগ্রাম মহানগর থেকে ১০ মাইল উত্তরে অবস্থিত বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি ভাটিয়ারিতে উপস্থিত হতে হয়। সেখানে প্রায় দুই বছর প্রশিক্ষণ নেন, অতঃপর তিনি একজন সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট বা লেফটেনেন্ট বা ক্যাপ্টেন র‌্যাংক নিয়ে চাকরি শুরু করেন। এরপর তিনি সেনাবাহিনীর বিভিন্ন কোর বা রেজিমেন্টে নিয়োগ পান। ওখানে আসার তিন চার মাসের মধ্যেই তিনি মৌলিক প্রশিক্ষণের জন্য নির্বাচিত হন। তিনি যদি যোগাযোগ বা সিগন্যাল কোরের অফিসার হন তাহলে তিনি যশোর যাবেন। আর তিনি যদি পদাতিক কোর বা ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট বা বাংলাদেশ ইনফেনট্রি রেজিমেন্টের অফিসার হন তবে তিনি সিলেট যাবেন কিংবা গোলন্দাজ বাহিনীর অফিসার হলে তিনি চট্টগ্রামের হালিশহর যাবেন। তিনি যদি আর্মি সার্ভিসেস কোরের অফিসার হন তাহলে তিনি খুলনার উত্তরে গিলাতলায় যাবেন। এরূপ বাকিদের জন্য নির্দিষ্ট প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে গিয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হয়। এসব কথা বলার মানে হলো আগামী দিনে যে যেই ধরনের কাজ করবেন তাকে সেই বিষয়ের নির্দিষ্ট প্রশিক্ষণ নিতে হয়।

উদাহরণ-৩ মসজিদের ইমামগণের প্রশিক্ষণ
অপর দিকে, গ্রামের মসজিদগুলোতে ইমামতি করা এমন কোনো কষ্টসাধ্যের ব্যাপার নয়। যুগ যুগ ধরে সেই কাজটি হয়ে আসছে। গ্রামের মসজিদগুলোতে যারা ইমামতি করেন তারা সম্মানিত ব্যক্তি হন। সাধারণত গ্রামগুলোতে ইমাম সাহেবদের মাধ্যমেই বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি পালন ও উদযাপন করা হয়। যেমন- ঈদে মিলাদুন্নবী, মহররমের দিন, শবে মেরাজের সন্ধ্যায়, শবে বরাতের রাত এবং বিয়ে, খতনা- এ জাতীয় অনুষ্ঠানগুলোতে তাদের মধ্যে কেউ-না-কেউ উপস্থিত থাকেন। ইমামতি তথা মসজিদের ইমাম হতে হলে একজন ব্যক্তিকে নামাজের পদ্ধতি তথা ঈমান-আকিদা কুরআন-সুন্নাহ ইত্যাদি সব বিষয়ে জ্ঞান রাখতে হয়। তার পোশাক-আশাক, আচার-আচরণ দায়িত্ব ও মূল্যবোধ চলন-বলন ইত্যাদি গ্রহণযোগ্য হতে হয়। সর্বোপরি তাকে একজন (সমাজের দৃষ্টিতে) ঈমানদার ও নামাজি হতে হয়, যাতে সমাজের অন্যরা তাকে অন্য ১০ জনের চেয়ে আলাদা বা সম্মানিত মনে করেন এবং এ-ও ভাবেন যে, তিনি একজন ধর্মপ্রাণ ব্যক্তি। তবেই গ্রামবাসী তাকে ইমাম হিসেবে মেনে নেবেন। যেসব ব্যক্তি মসজিদে ইমামতি করেন তারা মাদ্রাসা থেকে এসব বিষয় শিখে আসেন বিধায় তারা ইমামতি করেন। কিন্তু একটি মসজিদের ইমাম শুধু কি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ানো কিংবা ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি পালনের জন্যই ওখানে নিযুক্ত হন? নাকি আরো কোনো বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের সক্ষমতা রাখেন? একসময় পাকিস্তান সরকার বা বর্তমান বাংলাদেশ সরকার মনে করল ইমামরা এসব কাজ ছাড়াও আরো বৃহত্তর দায়িত্ব পালন করার সক্ষমতা রাখেন। ঠিক তখনই ইমাম প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হলো। সেই ইমাম প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ইমামদের মধ্যে গুণগত পরিবর্তন আনা, জ্ঞানের পরিবর্তন আনা, আচার-আচরণে পরিবর্তন আনা, চিন্তাশক্তির পরিবর্তন আনা এবং কর্মের স্পৃহায় নতুনত্বে জোর দেয়া হয়েছে। বর্তমানে ইসলামিক ফাউন্ডেশন, যার সদর দফতর ঢাকাতে অবস্থিত তারা ইমাম প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছে। গত কয়েক বছরে তারা কয়েক হাজার ইমামকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে। মুরগি পালন, শিশুদের টিকা দেয়া, সামাজিক কুসংস্কার, ব্যাধি, যৌতুকপ্রথা, নারী নির্যাতন, বাল্যবিয়ে, মাদকদ্রব্যসহ ইত্যাদি বিষয় রোধ করতে গণসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য তাদের নানা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রশিক্ষণের ফলে একজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইমাম তার আগের গুণগত অবস্থা থেকে আরো অনেক বেশি গুণগত এবং কর্মস্পৃহায় উদ্যোগী হয়ে ওঠেন।

দেশ পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষণ প্রয়োজন আছে কি?
আমি তিনটি উদাহরণ দিলাম এই মর্মে যে, প্রশিক্ষণ একজন মানুষকে বাস্তব জীবন ও কর্মস্পৃহায় শক্তিশালী করে তোলে। তাহলে এখন প্রশ্ন জাগতে পারে যে, দেশ চালানোর জন্য কি কোনো প্রশিক্ষণের প্রয়োজন আছে? আমাদের দেশের শাসকেরা আদৌ দেশ পরিচলনার জন্য কোনো প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন কি? দেশ পরিচালনা কাজে অনেক লোক অনেক পেশায় জড়িত। তবে দুই প্রকারের ব্যক্তি বা পেশা সবার সামনে সর্বদা থাকেন। এক প্রকারের ব্যক্তির নাম আমলা, অপরটি রাজনীতিবিদ বা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। পাঠককুলের কাছে প্রশ্ন, এই দুই ক্যাটাগরির ব্যক্তিদের মধ্যে কাদের কতটুকু প্রশিক্ষণের প্রয়োজন রয়েছে? এটা বিবেচনার ভার আপনাদের কাঠগড়ায় রেখে দিলাম। গত ৪৮ বছরে বাংলাদেশকে যদি আমরা পর্যালোচনা করি তাহলে দেখব, এ দেশের শুরু থেকে যা-ই কিছু অর্জন হয়েছে এসবের পেছনে রয়েছে প্রথমত মেহনতি শ্রমিক কৃষক জনতার অবদান এবং দ্বিতীয়ত কিছু দূরদৃষ্টিসম্পন্ন সৎ রাজনৈতিক নেতৃত্বদানকারীদের অবদান। তার জন্য প্রথমে আমি জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই এবং দ্বিতীয়ত প্রাসঙ্গিক রাজনৈতিক ব্যক্তিকে ধন্যবাদ জানাই। সর্বক্ষেত্রে কমবেশি তাদের অবদান বিদ্যমান, তা না হলে আজকের বাংলাদেশ এই পর্যায়ে আসত না। ভালো হোক মন্দ হোক বা কম ভালো হোক বা কম মন্দ হোক, সৎ ও দূরদৃষ্টিসম্পন্ন রাজনীতিবিদরা একটি পরিবেশ সৃষ্টি করেছিলেন বলে বর্তমান প্রাইভেট সেক্টরে শিল্প উদ্যোক্তারা এবং এনজিওগুলো কিছু অবদান রাখতে পেরেছে। যার ফলে বর্তমান বাংলাদেশে কিছুটা উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে, যদিও সেটি একান্তভাবেই ভৌত অবকাঠামোভিত্তিক বেশি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা কি এইটুকু উন্নয়ন নিয়ে সন্তুষ্ট থাকব? এতটুকুই কি আমাদের ভাগ্যে লেখা ছিল? উত্তরে নির্দ্বিধায় বলতে হচ্ছে- না, আমাদের এইটুকু উন্নয়ন ভাগ্যে লেখা ছিল না আর এইটুকু নিয়েও আমরা সন্তুষ্ট হতে পারি না। আমাদের ভাগ্যে আরো অনেক বেশি কিছু লেখা ছিল কিন্তু আমরা সেটিকে ধরতে পারিনি, বা সেটির মূল্যায়ন করিনি। তার জন্য দুই প্রকৃতির ব্যক্তি যারা দেশের নেতৃত্ব দেন বা দেশ প্রশাসনের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত তারা দায়ী। আমরা অচেতন বা অবচেতন থাকলে আমাদেরই ক্ষতি। আমাদের জেগে উঠতে হবে। আমাদের সম্বিত ফিরে পেতেই হবে। এখন কিঞ্চিত ভিন্ন আঙ্গিকের একটি বিষয় অবতারণা করছি।

সার্বভৌমত্বের প্রতি হুমকির ভিন্ন মাত্রা
অতীতে বিভিন্ন জাতির ও দেশের স্বাধীনতার প্রতি যেই যেই আঙ্গিক থেকে বা যেই যেই অঙ্গন থেকে হুমকি আসত, অতি সাম্প্রতিক বিশ্বে, বিভিন্ন দেশের স্বাধীনতার প্রতি বা সার্বভৌমত্বের প্রতি হুমকিগুলো ওই তুলনায় ভিন্ন। অস্ত্রের আকৃতি-প্রকৃতি এবং গতি পরিবর্তিত হয়েছে। লক্ষ্যবস্তুর বিশ্লেষণে পরিবর্তন এসেছে। সারা পৃথিবীতে বিশ্বায়নের জোয়ার হয়েছে; বিশ্বায়নের সুবিধাগুলোর সাথে সাথে অসুবিধাগুলোও এসেছে। স্বাধীনতার প্রতি হুমকি তখনই ফুলেফেঁপে ওঠে যখন আমরা সুবিধাগুলো গ্রহণ করি কিন্তু অসুবিধাগুলোকে ধর্তব্যের মধ্যে রাখি না। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, আমাদের দেশের সার্বভৌমত্বের ওপর হুমকি ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। ১৯৭৪ সালের সিকিম নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের পরিণতি, সাম্প্রতিককালে ইরাক এবং সিরিয়ার পরিণতি আমাদের জন্য দৃষ্টান্ত। এমনকি দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপ রাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার ঘটনাবলিও আমাদের জন্য দৃষ্টান্ত। দেশের স্বাধীনতার মূল্য এবং শাসকগোষ্ঠীর শাসন করার অধিকারের মূল্য যখন সঙ্ঘাতময় হয়, তখন স্বাধীনতা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দক্ষিণ এশিয়া পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক এবং দেশীয় ষড়যন্ত্রের কারণে ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু নিহত হয়েছিলেন; ১৯৮১ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নিহত হয়েছিলেন। অর্থাৎ বাংলাদেশকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হতেই পারে। সেই ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় যদি আমরা দুর্বল থাকি তাহলে ক্রমান্বয়ে স্বাধীনতা বিপন্ন হতে থাকবে। উই পোকা যেমন দরজার চৌকাঠ, জানালার পাল্লা, আলমারির দরজা ইত্যাদি খেয়ে ফেলে কিন্তু ব্যবহারকারীরা টের পায় অনেক দিন পরে, অনুরূপ একটি দেশের স্বাধীনতা বা সার্বভৌমত্বের ওপরও আক্রমণ, একবিংশ শতাব্দীর স্টাইলে অতি ভদ্র, অতি ধীরলয়ে এবং অতি আনন্দঘন পরিবেশেই সম্পন্ন হবে। এরূপ আক্রমণ টের পেতে পেতে, আক্রমণকারীর অগ্রযাত্রা অনেক দূর সম্পন্ন হয়ে যাবে। ডিসেম্বর ২০১৯-এ আমি আবেদন করতে পারি যে : (এক) বাংলাদেশের নাগরিকগণ যেন চিন্তাশীল হন, চিন্তাবিমুখ না হন। (দুই) আত্মসমালোচক হন, আত্মভোলা না হন। (তিন) নিজেদের অতি মূল্যায়ন না করেন, নিজেরা হীনম্মন্যতায়ও যেন না ভোগেন। (চার) আত্মবিশ্বাসে বলীয়ান থাকেন কিন্তু অতি মাত্রায় নয়; মনের ভেতর সন্দেহ রাখবেন কিন্তু প্রকাশ্যে নয়।

তরুণ সম্প্রদায়ের প্রতি নিবেদন
বাংলাদেশের জনসংখ্যার বেশির ভাগই তরুণ। তরুণ বলতে তরুণীরাও শামিল। তরুণদের একাধিক ক্যাটাগরিতে ভাগ করা যায়। (এক) লেখাপড়ায় দুর্বল পেশাগতভাবে নিজেকে উন্নত করতে আগ্রহী। (দুই) লেখাপড়ায় সংশ্লিষ্ট এবং নিবিড়ভাবে রাজনীতিসংশ্লিষ্ট। (তিন) সরকারদলীয় রাজনীতিসংশ্লিষ্ট। (চার) রাজনীতিবিমুখ পেশাগত উৎকর্ষ অর্জনে ব্যস্ত। সার্বিকভাবে বা মোটা দাগে তরুণ সম্প্রদায় আমাদের অভিনন্দন পাবেন। তারা আবিষ্কারমনস্ক। তারা দায়িত্বশীল। তারা কর্ম-আগ্রহী। কিন্তু সরকারদলীয় রাজনীতিতে যারা নিবেদিত, সেসব তরুণের ভুলভ্রান্তির কারণে, দু’টি নেতিবাচক প্রভাব সমাজে পড়ে। একটি প্রভাব হলো, নিরপেক্ষ জনসাধারণ রাজনীতিকেই অপছন্দ করে এবং দ্বিতীয় প্রভাব হলো, মানুষ তরুণ সম্প্রদায়কে অবমূল্যায়ন করে। আমার এই কলামের সর্বশেষ অংশে আমি তরুণ সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান রাখব, তারা যেন নিজেদের সম্ভাবনা বা পটেনশিয়ালিটিকে নষ্ট না করেন। হাজার লোকে, লাখো লোকে বলছে এবং বলবে, তরুণরাই আগামী দিনে বাংলাদেশে নেতৃত্ব দেবে; তরুণরাই আগামী দিনের তথা ভবিষ্যৎ বাংলাদেশের মালিক। বলা খুবই সহজ। কঠিন কাজটা হলো সেই তরুণদের প্রস্তুত করা। এই দায়িত্ব তরুণদের ওপর যেমন পড়ে, তেমনি প্রবীণ তথা অভিভাবকদের ওপরেও পড়ে। এই দায়িত্ব পালনে আমরা পিছিয়ে আছি। আমরা জেগে উঠতে চাই।

লেখক : মেজর জেনারেল (অব:); চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি
www.generalibrahim.com.bd

Keywords